এফিলিয়েট মার্কেটিং ব্যসিক প্রশ্নোত্তর

এই লেখাটি নতুনদের জন্য। যাদের একদমই এফিলিয়েট মার্কেটিং নিয়ে আইডিয়া নেই। সচারচর নতুনদের কাছ থেকে যে প্রশ্নগুলো আমি পাই সেগুলো এখানে একত্রে প্রকাশ করা হচ্ছে। প্রয়োজন অনুযায়ী পোস্টটি আপডেট করা হবে।

এফিলিয়েট মার্কেটিং কি?

অন্যের প্রোডাক্ট বা সার্ভিস কমিশন ভিত্তিক প্রমোশনই হলো এফিলিয়েট মার্কেটিং। যদি আরো সহজভাবে বুঝাতে চাই তাহলে – ধরুন আপনার কাছে বেশ কিছু মোবাইল ফোন আছে এবং তা ১০ হাজার টাকা করে সেল করতে চান। এখন আপনি আমাকে বললেন আমার মোবাইলগুলো যদি সেল করে দেন তাহলে আমি এর বিনিময়ে আপনাকে প্রতি সেল এ ৫০০ টাকা করে দিবো মানে ৫% কমিশন । প্রোডাক্টের মালিক (আপনার)  অনুমতি পাওয়ার পর যদি আমি এটা প্রমোট করে সেল করে দেই তাহলে ৫% কমিশন এখান থেকে পাচ্ছি প্রতি সেল এর জন্য। আর ইন্টারনেট মার্কেটিং এ এটাই হলো এফিলিয়েট মার্কেটিং।

ক্যারিয়ার হিসেবে এফিলিয়েট মার্কেটিং কতটা সম্ভাবনাময়?

বর্তমানে প্রায় সবকিছুই অনলাইনভিত্তিক হচ্ছে। যার ফলে প্রোডাক্ট মেকার বা সার্ভিস প্রোভাইডারদের বিজনেসও এফিলিয়েট মার্কেটারদের উপর নির্ভশীল হয়ে চলতে হচ্ছে। কেননা অনলাইন বিজনেসের মার্কেটিং এর জনপ্রিয় মাধ্যম হলো এফিলিয়েট মার্কেটিং।  যেখানে প্রোডাক্ট মেকার বা সার্ভিস প্রোভাইডারকে আলাদাভাবে মার্কেটিং এর জন্য তেমন খরচ করতে হচ্ছে না। এফিলিয়েট মার্কেটাররাই তা প্রমোট করে দিচ্ছে।ওয়ার্ল্ডের বড় বড় কোম্পানিগুলো এখন এফিলিয়েট মার্কেটারদের প্রতি নির্ভরশীল হয়ে উঠছে। এর মধ্যে এমাজনকেই দেখুন তারাও এফিলিয়েট মার্কেটারদের উপর নির্ভরশীল। আর প্রোডাক্ট মেকাররা যেমন প্রোডাক্ট সেল করে মিলিয়নার হচ্ছে তেমনি এফিলিয়েট মার্কেটাররাও কিন্তু অন্যের প্রোডাক্ট সেল করে মিলিয়নার হচ্ছে।প্রোডাক্ট থাকলে এফিলিয়েট মার্কেটারদের লাগবে। সো, এখানে অসাধারণ সম্ভাবনা।

এফিলিয়েট মার্কেটিং কিভাবে কাজ করে বা এর ধাপগুলো কি?

পয়েন্ট আকারে উত্তরটি দিচ্ছি। এতে বুঝতে সুবিধা হবেঃ

১. এমন একটি কোম্পানী বা মার্কেটপ্লেস খুজে বের করা যাদের এফিলিয়েট প্রোগ্রাম আছে।

২. তারপর সেই কোম্পানী বা মার্কেটপ্লেসে সাইন আপ করে এফিলিয়েট হওয়া।

৩. কোন প্রোডাক্টের প্রমোশন করবেন তা নির্ধারন করা এবং ট্র্যাকিং লিংক নেয়া।

৪. এরপর এই লিংক প্রমোশন করা।

৫. যখন এই ট্র্যাকিং লিংকের মাধ্যমে কোন সেল আসবে সেই সেল থেকে আপনাকে কমিশন দেয়া হবে।

কিভাবে আমি এফিলিয়েট মার্কেটিং শুরু করতে পারি?

প্রথমত বলবো সবার আগে মাইন্ড সেটাপ করে নিন আসলেই কি আপনি প্রফেশনাল এফিলিয়েট মার্কেটার হতে চান? নাকি কি এটাকে টেস্ট হিসেবে দেখতে চান? মানে ভাবছেন দেখি একটু ট্রাই করে ভালো হলে করবো। তাহলে আপনার জন্য এফিলিয়েট মার্কেটিং না। কারণ এফিলিয়েট মার্কেটিং একটি বিজনেস ও অনেকগুলো স্কিলের সমন্যয়। এখানে আপনার অনেক কিছু জানতে হবে। হ্যা আউটসোর্স করেও আপনি কাজ করতে পারবেন। অন্তত এগুলোর উপর আপনার ব্যাসিক জ্ঞান থাকতে হবে। তাছাড়া আপনি কোয়ালিটি ধরতে পারবেন না। এগুলোই বুঝেই সিধান্ত নিন আপনার জন্য এফিলিয়েট মার্কেটিং কিনা? তারপর শেখা শুরু করুন। ব্যসিক আইডিয়া পেতে গুগুলে সার্চ দিয়ে আর্টিকেল ও ইউটিউবে ভিডিও দেখুন। সবচেয়ে ভালো হয় কোন একটি কমিউনিটি অথবা মেন্টরের হাত ধরে কাজ শেখা শুরু করা। এতে আপনার সময় বাচবে ও সল্প সময়ে অনেক কিছু শিখতে পারবেন। এরপর যখন নিজেকে এফিলিয়েট মার্কেটিং এর জন্য যোগ্য মনে করবেন তখন থেকেই কাজ শুরু করে দিন।

এফিলিয়েট মার্কেটিং শুরুর জন্য কি কি জানা জরুরী?  

যদি আপনি ইনভেস্টমেন্ট ছাড়া শুরু করতে চান তাহলে আপনাকে অনেক কিছুই জানতে হবে। যেমনঃ ওয়েবসাইট ডিজাইন, গ্রাফিক ডিজাইন, ভিডিও এডিটিং, কন্টেন্ট রাইটিং,এসইও ইত্যাদি। অবশ্য এগুলোর মুটামুটি ব্যসিক জানলেই শুরু করতে পারবেন। তবে এগুলোর  সাথে সবচেয়ে যেটা বেশি জানা জরুরী সেটা হলো ভালো ইন্টারনেট মার্কেটিং নলেজ। আর যদি ইনভেস্ট এর মাধ্যমে শুরু করতে চান। তাহলে ইন্টারনেট মার্কেটিং ভালোভাবে আয়ত্ত করলেই হবে। সাথে অন্যদের দিয়ে যে আপনি কাজ করাবেন সেই কাজের কোয়ালিটি বুঝার ক্ষমতা আপনার থাকতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

18 + twelve =