টুইটার মানি মেকিং সিস্টেমঃ টুইটার থেকে আর্ন করার ১০ টি উপায়

টুইটার। জনপ্রিয় সোশ্যাল নেটওয়ার্কগুলোর মধ্যে একটি। আমরা অধিকাংশরাই সামজিক যোগাযোগ এর একটা মাধ্যম হিসবে এটাকে ব্যবহার করি। কিন্তু আমরা চাইলে টুইটার থেকে আর্ন করতে পারি। তবে এর জন্য আগে টুইটার একাউন্টকে প্রস্তুত করতে হবে,ফলোয়ার থাকতে হবে ইত্যাদি।  কিন্তু আজ সেগুলো নিয়ে আলোচনা করবো না । এগুলো নিয়ে সামনের কোন লেখায় তা লিখবো। আজ শুধু টুইটার থেক আর্ণ করার ১০ টি উপায় আপনাদের সাথে শেয়ার করবো। তো চলুন দেখা যাক ওয়েগুলোঃ

১। ভাইরাল কন্টেন্ট মনিটাইজেশনঃ

শুধুমাত্র সোশ্যাল মিডিয়ার অডিয়েন্সগুলোকে  মনিটাইজেশন এর জন্য অনেক মার্কেটপ্লেস আছে যেগুলোতে বিভিন্ন ভাইরাল কন্টেন্ট দেয়া থাকে সেগুলোর ট্র্যাকিং লিংক আপনার ফলোয়ারদের সাথে শেয়ার করার পর সেখান থেকে যদি ওয়েবসাইটে ট্রাফিক বা ভিজিটর যায় তাহলে  আপনি সেখান থেকে নির্দিষ্ট পরিমান রিভিনিউ পাবেন।  এ জন্য আপনার নিজের কোন ওয়েবসাইটের প্রয়োজন নেই। তারাই আপনাকে সাবডোমেইন দিবে। সেটা দিয়ে আপনি প্রমোট করতে পারবেন। এরা মূলত ট্রাফিক কোয়ালিটি অনুযায়ী পে করে। এগুলোকে ৩ ভাগে ভাগ করা হয়েছে।  টায়ার ১,টায়ার ২, টায়ার ৩ । টায়ার ১ এর ট্রাফিকে এর ক্ষেত্রে এদের পেআউট বেশি থাকে। প্রতি ১ হাজার ভিজিটরের জন্য  ১২-২০ ডলার পর্যন্ত দেয় তারা। এভাবে ট্রাফিক কোয়ালিটি নরমাল তত রেভিনিউ কমতে থাকে। এরকম মার্কেটপ্লেস আপনি গুগুল সার্চ করলে অনেক পেয়ে যাবেন। মাইলাইকস,টুইলিকস ইত্যাদি।

২। স্পন্সর টুইটঃ

যদি আপনার বেশ ভালো পরিমান ফলোয়ার থাকে তাহলে আর্নিং এর অন্যতম মাধ্যম হতে পারে স্পন্সর টুইট। এ ক্ষেত্রে আপনি প্রতি টুইট এর জন্য ৫ থেকে ১০০ ডলার বার তার অধিক আর্ন করতে পারেন। শুধু স্পন্সর টুইট এর জন্যই অনেক মার্কেটপ্লেস আছে আপনি যদি গুগুল সার্চ করে তাহলে এমন অনেক সাইট খুজে পাবেন। তাছাড়া আপনারা ফাইভার, পিপলপার আওয়ার এমন অনেক গিগ বা আওয়ারলি খুজে পাবেন সেগুলো থেকে আইডিয়া নিতে পারেন।

৩। একাউন্ট সেলঃ

আপনি শুরু থেকে আপনার টুইটার এর মাধ্যমে আর্ন করতে পারেন। আবার এক পর্যায়ে আপনার টুইটার একাউন্ট অনেক বেশি জনপ্রিয় হলে চাইলে সেটাকে চাইলে বিক্রিও করতে পারেন।। এটা অনেকটা নিশ সাইট সেলিং এর মতো। ভালো ফলোয়ার ও ভালো অডিয়েন্স থাকলে একটা টুইটার একাউন্ট আপনি ১০-১৫ হাজার ডলার বা তারও বেশি ডলার দিয়ে বিক্রি করতে পারেন। সোশ্যাল একাউন্ট সেল এর জনপ্রিয় সাইট হলো ভাইরাল একাউন্টস ডট কম। এরা  ১ টি একাউন্ট  ৫০ ডলার থেকে ১৫ হাজার ডলার পর্যন্ত নেয়। মাঝে মাঝে তার বেশিও। এটা ডিপেন্ড করে আপনার একাউন্ট এর কয়ালিটি এর উপর।

৪। সিপিএ ও পিপিআইঃ

টুইটার থেকে আর্নিং এর অন্যতম মাধ্যম হতে পারে সিপিএ ( কস্ট পার একশন ) ও পিপিআই ( পে পার ইন্সটল) । আপনি যদি টুইটার ফ্রি গিফট টাইপের কিছু লিখে সার্চ দেন। দেখবেন এগুলোর অধিকাংশই সিপিএ অফার থাকে। যেগুলো থেকে তারা পার একশন ১ থেকে  ৩ ডলার পর্যন্ত। টুইটারে প্রমোটের জন্য সিপিএ এর ইমেইল ও জিপ সাবমিট অফারগুলো বেশি জনপ্রিয়। অন্য দিকে মোবাইল এপ বা ডেস্কটপ সফটওয়ার ইন্সটল এর মাধ্যমে অনেকেই আর্ণ করছে। সেখানেও প্রতি ইন্সটল এর জন্য কান্ট্রি অনুযায়ী সর্বনিম্ন ১ সেন্ট থেকে থেকে ৩ ডলার পর্যন্ত আর্ণ করছে। আবার এমনও অফার আছে যেগুলোতে ১ ইন্সটলেই ৩০ ডলার পর্যন্তও দেয়। হয়। এগুলো নিয়ে অন্য কোন একদিন লিখবো।

৫। টুইটার ভিডিও মনিটাইজেশনঃ

আমরা অলরেডি ইউটিউব ভিডিও মনিটাইজেশন এর কথা অনেকেই জানি। কিন্তু অনেকেই হয়তো জানি না টুইটার এও ভিডিও মনিটাইজেশন করা যায়। হ্যা , সম্প্রতি টুইটার তাদের ভিডিও মনিটাইজেশন এর সিস্টেম চালু করেছে। চাইলে আপনি সেখান থেকে আর্ন করতে পারেন। বিস্তারিত জানতে টুইটার এর ব্লগ সাইটে ভিজিট করুন। সেখানে লেখা আছে কিভাবে আপনি আপনার ভিডিও মনিটাইজেশন করতে পারবেন।

৬। ডিজিটাল প্রোডাক্ট সেলঃ

আপনি চাইলে টুইটার এর মাধ্যেম নিজের প্রোডাক্ট সেল করতে পারেন যেমনঃ ইবুক,ডিজাইন টেমপ্লেট,ওয়েব টেম্পলেট,  ইত্যাদি। । এটা চাইলে আপনি দুই মাধ্যেম করতে পারেন। এক, কোন মার্কেটপ্লেসের অধিনে। দুই, নিজের অধিনেই ।  ডিজিটাল প্রোডাক্ট সেলিং বিজনেস নিয়ে আমার ব্লগে লিখেছি আশা করি সেখান থেকে ভালো আইডিয়া পাবেন। আর হ্যা টুইটার এর ক্ষেত্রে আমি ডিজিটাল প্রোডাক্ট সেল করা সাজেস্ট করি। সরাসরি ফিজিক্যাল প্রোডাক্ট সেল করা সাজেস্ট করিনা। কারণ আমাদের দেশ থেকে অন্য কান্ট্রিতে ফিজিক্যাল প্রোডাক্ট পাঠনো বেশ কষ্টসাধ্য ব্যাপার। তবে হ্যা ড্রপশিপিং এর মাধ্যমে ফিজিক্যাল প্রোডাক্ট সেল করতে পারেন। এক্ষেত্রে ড্রপশিপিং বিজনেসটা ভালোভাবে আয়ত্ত করতে হবে। আর যদি দেশেই ফিজিক্যাল প্রোডাক্ট সেল করতে চান করতে পারেন। তবে আমি তবুও এটা সাজেস্ট করি না কেননা আমাদের দেশে টুইটার এখনো অতটা জনপ্রিয় না। যতটা জনপ্রিয় ফেসবুক।

৭। টি-শার্ট বা মগ সেলঃ

টুইটার এর মাধ্যেম আরেকটি আর্নিং মাধ্যম হতে পারে টি-শার্ট বা মগ সেলিং বিজনেস। আপনি চাইলে নিজের ডিজাইন করে কোন প্লাটফর্মের মাধ্যমে সেল করতে পারেন। এক্ষেত্রে বাংলাদেশে টিস্প্রিং,ভাইরালস্টাইল,গিয়ারলনচ ইত্যাদি বেশ জনপ্রিইয়। এছাড়া নিজে ডিজাইন না জানলেও অন্যের টি-শার্ট এফিলিয়েশনের মাধ্যমেও আর্ণ করতে পারবেন। এক্ষেত্রে সানফ্রগ আমাদের দেশে বেশ জনপ্রিয়।

৮। এফিলিয়েট মার্কেটিং :

অনলাইন মার্কেটিং এ আর্নিং এর অন্যতম জনপ্রিয় মাধ্যম হলো এফিলিয়েট মার্কেটিং। আপনার কোন প্রোডাক্ট না থাকলেও অন্যের প্রোডাক্ট সেল করে এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে বেশ স্মার্ট ইনকাম করতে পারেন। এফিলিয়েট মার্কেটারদের মার্কেটপ্লেসের অভাব নেই।প্রায় প্রতিটি ভালো ডিজিটাল বা ফিজিক্যাল প্রোডাক্ট মার্কেটপ্লেসে এফিলিয়েট প্রোগ্রাম চালু আছে। শুধু এফিলিয়েট থেকে মিলিয়ন ডলার আর্ণ করেন এমন অনেক এফিলিয়েট মারকেটার আছে ওয়ার্ল্ডে। আপনি চাইলে আপনার ফ্যান পেজের মাধ্যমে এফিলিয়েট প্রোডাক্ট সেল করতে পারেন। জনপ্রিয় এফিলিয়েট নেটওয়ার্কঃ ক্লিকব্যাংক,জেভিজু,এমাজন ইত্যাদি।

৯। ব্লগ ও ভিডিও মনিটাইজেশনঃ

আপনি চাইলে ব্লগ সাইট ক্রিয়েট করে তা মনিটাইজেশন করতে পারেন । গুগুল এডসেন্সসহ আরো অনেক ভাবেই আপনার ব্লগ সাইটকে মনিটাইজেশন করতে পারেন। সিপিসি,সিপিএম,সিপিএ,পিপিআই,পপআপ,নেটওয়ার্কের মাধ্যমে। এছাড়া আপনি ইউটিউবে ভিডিও মনিটাজেশন করতে পারেন। শুরুর দিকে ভালো ট্রাফিক পেলে র‌্যাংক এর ক্ষেত্রে হেল্প করবে।

১০। লিস্ট বিল্ডিং:

মার্কেটিং এ একটা কথা আছে “ মানি ইজ ইন দ্যা লিস্ট” । লিস্ট বিল্ডিং নিয়ে এ কথাও আছে যে – ১ টা টার্গেটেড লিস্ট থেকে আপনি মাসে নূন্যতম ১ ডলার আর্ন করতে পারবেন। সো, বুঝতেই পারছেন লিস্ট বিল্ডিং কতটা গুরুত্তপূর্ণ। লাইফটাইম বিজেননেসের জন্য লিস্ট বিল্ডিং এর গুরুত্ত অপরীসিম। অন্য ট্রাফিক সোর্স আপনার কণ্ট্রোলে না থাকলেও এই ট্রাফিকগুলোর কন্ট্রোল আপনার হাতে।। লিস্ট বিল্ডিং এর জন্য অন্যতম ওয়ে হতে পারে টুইটার। এখান থেকে প্রতিদিন ১০০+ নতুন লিড কালেক্ট সম্ভব। ইনশাআল্লাহ শীঘ্রই লিস্ট বিল্ডিং নিয়ে পর্ব আকারে লেখা আসছে।

 

6 thoughts on “টুইটার মানি মেকিং সিস্টেমঃ টুইটার থেকে আর্ন করার ১০ টি উপায়

    1. আপনাকেও ধন্যবাদ কমেন্ট ও এপ্রিশিয়েট এর জন্য।

  1. অনেক সুন্দর লিখেছেন ভাই। আপনার লেখা বরাবরই ভাল হয়।

    1. ধন্যবাদ সুন্দর কমেন্টের জন্য। আপনাদের এপ্রিশিয়েট আমার জন্য অনুপ্রেরনা। সামনে আরো ভালো কিছু দেয়া চেষ্টা করবো।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

six − two =